নেটলার কার্ড বর্তমান সময়ের বেশ জনপ্রিয় একটি প্রিপেইড মাস্টারডেবিট কার্ড। যার মাধ্যমে আপনি পৃথিবীর যেকোন জায়গা থেকে যেকোন সময় আপনার টাকা উত্তোলন করতে পারবেন এবং অনলাইন এ কেনাকাটা করতে পারবেন। বর্তমানে নেটলার দুইটি কারেন্সির কার্ড ইস্যু করে থাকে। ডলার এবং ইউরো কারেন্সি কার্ড।

  • বাংলাদেশ থেকে কি এই কার্ড জন্য আবেদন করা যাবে?

হ্যাঁ করা যাবে।

  •  নেটলার কার্ড এর চার্জ কত এবং বাংলাদেশি যেকোন বুথ থেকে কি টাকা তুলতে পারবো?

চার্জ এর জন্য নেটলার এর ওয়েবসাইট এ যান। বিস্তারিত জানতে পারবেন এবং অবশ্যই বাংলাদেশের যেকোন মাস্টারকার্ড লোগো চিহ্নিত বুথ থেকে টাকা তুলতে পারবেন।

  •   নেটলার কার্ড এ টাকা লোড করবো কিভাবে?

যদিও নেটলার এ অনেকভাবে টাকা লোড করার পদ্ধতি রয়েছে তারপরেও বাংলাদেশ থেকে টাকা লোড করাটা একটু কঠিন। কারণ বাংলাদেশ থেকে ব্যাংক ওয়্যার টাকা ট্রান্সফার করা যায় না। তাই ব্যাংক থেকে সরাসরি আপনার নেটলার একাউন্ট এ টাকা লোড করতে পারবেন না। এছাড়াও মাস্টারকার্ড এবং ভিসা ক্রেডিট এবং ডেবিট কার্ড এর মাধ্যমেও লোড করতে পারবেন। যদিও বাংলাদেশের বেশির ভাগ ডেবিট এবং ক্রেডিট কার্ড ইন্টারন্যাশনাল নয় তাই সাপোর্ট নাও করতে পারে। তাই আপনার কেউ বিদেশ থাকলে তাদের মাধ্যমে লোড করিয়ে নিতে পারেন। এছাড়াও বিস্বস্ত্য কারো মাধ্যমেও সরাসরি নেটলার এ ডলার লোড করিয়ে নিতে পারেন। যদিও এটি খুবই সচেতনভাবে করা উচিত কারণ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই প্রতারিত হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে। তাই শতভাগ নিশ্চিত না হয়ে কারো সাথে লেনদেন করবেন না।

  • নেটলার একাউন্ট ভেরিফাই করা কি জরুরী?

অবশ্যই। ভেরিফাই না করা হলে নেটলার এর সব সুযোগ সুবিধা পাওয়া যাবে না। 

  •   ভেরিফাই করতে কি কি ডকুমেন্ট দরকার?

ভোটার আইডি কার্ড এবং পাসপোর্ট এর স্ক্যান কপি। পাসপোর্ট না থাকলে সেই ক্ষেত্রে অন্য কোন সরকার অনুমোদিত আইডি কার্ড এর স্ক্যান কপি আপলোড করতে পারেন। অথবা বাসার যেকোন বিলের( যেমন- ইলেকট্রিসিটি বিল) স্ক্যান কপি সাবমিট করে দেখতে পারেন। তবে, ভোটার আইডি এবং পাসপোর্ট থাকলে খুব সহজেই ভেরিফাই করা সম্ভব হবে।

  • নেটলার কি নিরাপদ?

অবশ্যই নিরাপদ। তারপরেও কোন সন্দেহ থাকলে যেকোন সার্চ ইঞ্জিন এ নেটলার সম্পর্কে সার্চ করে দেখতে পারেন।

  •   নেটলার কি পেওনার এর মত বিনামূল্যে মাস্টারকার্ড ইস্যু করে থাকে?

নেটলার দুই ধরণের কার্ড ইস্যু করে থাকে। একটা ভার্চুয়াল মাস্টারকার্ড এবং আরেকটি হলো রেগুলার প্লাস্টিক মাস্টারকার্ড। ভার্চুয়াল কার্ড এর মাধ্যমে আপনি সবকিছুই করতে পারবেন শুধুমাত্র এটিএম বুথ থেকে টাকা তোলা ছাড়া।  ভার্চুয়াল কার্ড ফ্রী এবং আপনি একাউন্ট ভেরিফাই করার পরেই সেটি এক্টিভেট করতে পারেন। এক্টিভেট করার পর আপনাকে কার্ড এর নাম্বার, এক্সপায়ার ইনফরমেশন এবং সিভিসি নাম্বার দেওয়া হবে যা দিয়ে আপনি অনলাইনে সব কাজ করতে পারবেন।

আর রেগুলার প্লাস্টিক মাস্টারকার্ড এর জন্য আপনার একাউন্ট এ ১৩ ডলার থাকতে হবে। তাহলেই আপনি এই কার্ড এর জন্য আবেদন করতে পারবেন এবং ১৩ ডলার এর বিনিময়ে আপনার ঠিকানায় কার্ড পাঠিয়ে দেওয়া হবে। তাই রেগুলার প্লাস্টিক কার্ড এর জন্য আপনার একাউন্ট এ ন্যুনতম ১৩ ডলার থাকতে হবে।

  •  গুরুত্বপূর্ণ আপডেটঃ-

বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে নেটলার একাউন্ট করা গেলেও আগের মত আর মাস্টারকার্ড ইস্যু করা হচ্ছে না। তাই বর্তমানে নেটলার আসলে আমাদের জন্য তেমন আর কাজের নয়। ভার্চুয়াল মাস্টারকার্ড ও ইস্যু করা হচ্ছে না। আবার কবে থেকে এই সার্ভিস চালু হবে তাও জানা জায়নি। যাদের একাউন্ট আগে থেকে আছে, এবং বর্তমানে নেটলার কার্ড ব্যবহার করতে পারছেন, তাদের কার্ড মেয়াদোত্তীর্ন হবার পর নতুন করে আর কোন কার্ড ইস্যু করা হবে না। বিস্তারিত জানার জন্য নেটলার ওয়েবসাইট চেক করুন অথবা তাদের সাথে যোগাযোগ করুন। ধন্যবাদ।